Home / অনলাইনে আয় / চলুন ফ্রীল্যান্সিং করি- “অন্ধকারে না থেকে সঠিক ধারনা নেই, নিজেই নিজের ক্যারিয়ার গড়ি”- পর্ব-০৩ (ফ্রীল্যান্সিং- বিভিন্ন কাজ সম্পর্কে ধারনা- কোন কাজের জন্য কি লাগবে)

চলুন ফ্রীল্যান্সিং করি- “অন্ধকারে না থেকে সঠিক ধারনা নেই, নিজেই নিজের ক্যারিয়ার গড়ি”- পর্ব-০৩ (ফ্রীল্যান্সিং- বিভিন্ন কাজ সম্পর্কে ধারনা- কোন কাজের জন্য কি লাগবে)

ফ্রীল্যান্সিং এর ধারাবাহিক টিউনের গত পর্বে কথা বলেছিলাম ফ্রীল্যান্সিং কি কেন ইত্যাদি সম্পর্কে। আজকের এই পর্বে কথা বলব ফ্রীল্যান্সিং এর বিভিন্ন ধরনের কাজ সম্পর্কে এবং কোন কাজের জন্য আপনাকে কি জানতে হবে সেটার উপর।

 

তাহলে চলুন জেনে নিই ফ্রীল্যান্সিং এর বিভিন্ন কাজ সম্পর্কে এবং কোন কাজ করতে হবে কি জানতে হবে-

আউটসোর্সিং এর কাজগুলো বিভিন্ন বিভিন্ন ক্যাটাগরির হয়ে থাকে। যেমন- ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন, সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট, ডাটা এন্ট্রি, নেটওয়ার্কিং এর কাজ, ডিজাইন এন্ড মাল্টিমিডিয়া, সেলস এন্ড মার্কেটিং, পার্সোনাল হেল্প, আর্টিকেল লেখা ও অনুবাদ ইত্যাদি ইত্যাদি।

এসকল কাজগুলোর যে কোন একটি বা একাধিক সেক্টরে আপনি নিজেকে দক্ষ হিসেবে গড়ে তুলতে পারেন।

তাহলে চলুন জেনে নিই এই ধরনের কাজগুলো করতে হলে আপনাকে কি কি জানতে হবে-

১. ওয়েবডিজাইন এন্ড ডেভেলপমেন্টঃ এটি হচ্ছে ওয়েবসাইট তৈরি করে দেয়ার কাজ। আপনাকে আপনার ক্লাইন্ট কে তার প্রতিষ্ঠানের জন্য বা কোন সার্ভিস এর জন্য ওয়েবসাইট তৈরি করে দিতে হবে। এর জন্য আপনাকে ওয়েব প্রোগ্রামিং যেমন- HTML, CSS জানতে হবে। এইচটিএমএল এর লেটেস্ট ভার্শন এইচটিএমএল ৫ জানা থাকলে আরও ভাল। এর পাশাপাশি আপনাকে পিএইচপি, অল্প মাত্রায় জাভা জানা থাকতে হবে। তাছাড়াও ওয়ার্ডরপ্রেস, জুমলা ইত্যাদি শিখতে পারেন।

 

২. SEO (সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন)ঃ যারা ফ্রীল্যান্সিং এর জগতে আছেন কিন্তু এসইও এর নাম শোনেন নি এমন লোক পাওয়া দুর্লভ। কারন এসইও হচ্ছে খুবই কমন একটি কাজ। আপনার বানানো ওয়েবসাইটকে বিভিন্ন সার্চ ইঞ্জিন যেমন- গুগল, ইয়াহু, বিং ইত্যাদিতে প্রমোট করার মাধ্যমে তাদের সার্চ রেজাল্টে নিয়ে আসাকেই সহজ কথায় এসইও বলা হয়। নতুনদের জন্য ফ্রীল্যান্সিং শুরু করার একটি জনপ্রিয় মাধ্যম হচ্ছে এসইও। এটি মূলত সেলস এবং মার্কেটিং ডিপার্টমেন্ট এর অন্তর্ভুক্ত। অনলাইনে আপনার ওয়েব সাইটের প্রচার এবং ভিজিটর এর জন্য এসইও অতি গুরুত্বপূর্ণ। সময়ের সাথে তাল মিলিয়ে বেড়েই চলেছে এসইও এর কাজের সংখ্যা।

আপনারা চাইলে আমাদের টিউটোরিয়াল দেখে এসইও এর কাজ শিখতে পারেন। আমাদের এসইও টিউটোরিয়াল দেখতে এখানে ক্লিক করুন।

 

৩. সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্টঃ অনলাইন জগতের একটি বড় অংশ হচ্ছে সফটওয়্যার ডেভেলপমেন্ট। এই সেক্টরে আমাদের জন্য রয়েছে ব্যাপক সম্ভাবনা। তবে এর কাজ শেখাটা অন্যান্য কাজের তুলনায় একটি জটিল। এর মধ্যে রয়েছে- ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশন তৈরি, গেম তরি, বিভিন্ন প্লাগ ইন তৈরি, মোবাইল অ্যাপ তৈরি, সফটওয়্যার প্রজেক্ট ম্যানেজমেন্ট ইত্যাদি। একটি কষ্ট করে কাজ শিখতে পারলে আপনিও এই সেক্টরে কাজ করতে পারেন।

 

৪. ডিজাইন এন্ড মাল্টিমিডিয়াঃ এর মধ্যে আছে গ্রাফিক্স ডিজাইন, লোগো ডিজাইন, বিজনেস কার্ড ডিজাইন, বিভিন্ন এনিমেশন তৈরি, অডিও ভিডিও এডিট এবং তৈরি, প্রেজেন্টেশন তৈরি করা, প্রিন্ট ডিজাইন ইত্যাদি। ভালভাবে কাজ শিখে দক্ষতার পরিচয় রাখতে পারলে এই সেক্টর থেকেও আপনি সম্মানজনক অর্থ আয় করতে পারবেন।

 

৫. সেলস এন্ড মার্কেটিংঃ এটি একটি অনেক বড় সেক্টর। এর মধ্যে রয়েছে এসইও, বিজ্ঞাপন, ইমেইল-মার্কেটিং, এসএমএম বা সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং, এসইএম বা সার্চ ইঞ্জিন মার্কেটিং, মার্কেট রিসার্চ এন্ড এ্যনালাইসিস, সেলস জেনারেশন, বিজনেস প্ল্যানিং ইত্যাদি। এই ধরনের কাজের জন্য প্রথমে আপনাকে দক্ষ হতে হবে। এই ধরনের পেশায় আপনি বেশ ভাল পরিমান অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

 

৬. রাইটিং এন্ড ট্রান্সলেশনঃ এই বিষয়ে কাজ করতে গেলে আপনাকে ইংরেজীতে বেশ দক্ষ হতে হবে। ইংরেজিতে দক্ষ হলে আপনি আর্টিকেল লিখে আয় করতে পারবেন। আর যদি আপনি বিভিন্ন দেশের ভাষা জেনে থাকেন তাহলে ট্রান্সলেশনের কাজও করতে পারেন। তবে শুধু কাজ করার জন্য আবার বিভিন্ন দেশের ভাষা শিখতে যাবেন না।

 

৭. অ্যাডমিনিস্ট্রেটিভ সাপোর্টঃ এর মধ্যে আছে বিভিন্ন ধরনের ডাটা এন্ট্রি এর কাজ, পার্সোনাল অ্যাসিস্ট্যান্ট, ওয়েব রিসার্চ, ইমেইল হ্যান্ডলিং ইত্যাদি। কম্পিউটারের উপর ভাল দক্ষতা থাকলে আপনি এই কাজ করতে পারেন।

 

 

৮. বিজনেজ সার্ভিসঃ এছাড়াও এই সকল মার্কেটপ্লেসে অ্যাকাউন্টিং, বিজনেস প্লানিং, বিজনেস কন্সাল্টেশন এর কিছু কাজ পাওয়া যায়। ভাল মার্কেট অ্যানালাইজার হতে পারলে আপনিও এই কাজ করতে পারবেন।

এই গুলোই মূলত অনলাইন মার্কেট গুলোর সবচেয়ে কমন কাজ। আপনি যদি ভালভাবে কাজ শিখতে পারেন তাহলে আপনিও বেশ ভাল মানের কাজ করতে পারবেন। অনেকে বলে থাকেন এখন নাকি ফ্রীল্যান্সিং মার্কেটে কাজ পাওয়া যায় না। এটা সম্পূর্ণই ভুল তথ্য। আসলে আগে অনেকেই কাজ না জেনেও ভাওতাবাজি দিয়ে কাজ নিত। ক্লাইন্ট বিশ্বাস করে কাজ দিত ঠিকই কিন্তু অবশেষে কাজটি করতে না ক্লাইন্ট এর কাছে বাজে ফিডব্যাক পাওয়া যেত। এখন আসলে ভাওতাবাজির দিন শেষ। ইন্ডিয়ানদের নাম শুনলে ক্লাইন্টরা খুব সতর্ক হয়ে কাজ দেন। এই জন্য আপনাকে আগে খুব ভালভাবে কাজ শিখে নিতে হবে এবং প্র্যাক্টিস করতে হবে। সাথে সাথে আপনি যে কাজটি পারেন সেটি ক্লাইন্ট কে বোঝানোর জন্য বেশ ভাল মানের পোর্টফোলিও বানাতে হবে। এই ভাবে চেস্টা করলে অবশ্যই দ্রুত কাজ পাওয়া সম্ভব। আজকের পর্ব এখানে শেষ করছি। আগামী পর্বে আলোচনা করব কিভাবে আপনার জন্য সেরা কাজটি বেছে নিবেন এবং কোন কাজ করলে আপনি সফল হবেন সেটার উপর। ভাল থাকবেন সবাই।

আজকের পর্ব বুঝতে কোথায় কোন সমস্যা থাকলে আমাদের ফেসবুক গ্রুপে যোগ দিয়ে জানাতে পারেন- আমাদের ফেসবুক গ্রুপ।

ধন্যবাদ।

The following two tabs change content below.

আব্দুল কাদের (এডমিন)

নিজের সম্পর্কে বলার তেমন কিছুই নেই, খুব সাধারন একটি ছেলে। লিখাপড়া করছি কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টে। ছোটবেলা থেকেই টেকনোলোজির প্রতি ভীষণ আগ্রহ ছিল। তাই শেষপর্যন্ত টেককেই বেছে নিয়েছি পথ চলার সঙ্গী হিসেবে। এখন কাজ করছি Ted Cow নামের একটি কোম্পানিতে ওয়েব ডেভেলপার এবং এসইও প্রোজেক্ট ম্যানেজার হিসেবে। ভালবাসি কম্পিউটার সংক্রান্ত নতুন কিছু শিখতে। আমার মতে, আমার শেখা তখনই স্বার্থক হবে যখন সেটা আমি আরেকজনের মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারব। আর এই জন্যই প্রতিষ্ঠা করেছি আইটি বাড়ি। ইনশাআল্লাহ আমাদের স্বপ্নের লাল সবুজের ডিজিটাল বাংলাদেশ হবেই হবে।

Check Also

চলুন ফ্রীল্যান্সিং করি- “অন্ধকারে না থেকে সঠিক ধারনা নেই, নিজেই নিজের ক্যারিয়ার গড়ি”- পর্ব-০৬ (গ্রাফিক্স ডিজাইন যেভাবে শিখবেন?)- মেগা টিউন!!

আবারও আপনাদের মাঝে ফিরে এলাম ধারাবাহিক টিউনের ষষ্ঠ পর্বে। গ্রাফিক্স ডিজাইন হচ্ছে অনলাইন জগতের এক …

One comment

  1. I learn more new thing from this post.
    I try and obey your rule so that may I be successful.

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Real Time Web Analytics