Home / SEO ধারাবাহিক টিউটোরিয়াল / সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এ লোকাল এবং গ্লোবাল এসইও কনসেপ্ট? চলুন জেনে নেই।

সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশন এ লোকাল এবং গ্লোবাল এসইও কনসেপ্ট? চলুন জেনে নেই।

কেমন আছেন সবাই। আইটি বাড়ি তে গত টিউন এ আপনাদের ব্যাপক সাড়া পাওয়ার জন্য সবাইকে শুরুতেই ধন্যবাদ জানাচ্ছি। গত টিউনে আমি লোকাল এবং গ্লোবাল এসইও নিয়ে হালকা একটু আলোচনা করেছি। এতে করে আপনারা অনেকেই এই ব্যাপার নিয়ে প্রশ্ন করেছেন এই জিনিসটা কি? লোকাল এবং গ্লোবাল এসইও এর বিস্তারিত ধারনা দেয়ার জন্যই আজকের এই পোস্ট।

 

তো চলুন শুরু করা যাকঃ

 

এসইও আপনি কিভাবে করবেন বা ঠিক কোন ধরনের হবে তার উপর ভিত্তি করে এসইওকে দুই ভাবে ভাগ করা যেতে পারে।

একটি হচ্ছে- লোকাল এসইও

অপরটি- গ্লোবাল বা ইন্টারন্যাশনাল এসইও

 

লোকাল এসইও কি?

লোকাল এসইও শিখুন
লোকাল এসইও বুঝতে গেলে আমাদের আগে একটা জিনিস বুঝতে হবে। আমরা সবাই গুগল ব্যবহার করি। কিন্তু www.google.com এ প্রবেশ করলে দেখা যায় সেটা আর google.com এ থাকে না, বরং এটা automatically www.google.com.bd তে চলে যায়। এর কারন হচ্ছে, গুগল এর প্রায় প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ দেশের জন্য আলাদা আলাদা কান্ট্রিওয়াইজ সার্চ ইঞ্জিন রয়েছে যেগুলো কোন নির্দিষ্ট দেশ বা কোন নির্দিষ্ট অঞ্চলে সার্চ দেয়ার জন্য ব্যবহৃত হয়। যেমন- বাংলাদেশের জন্য http://google.com.bd, ভারতের জন্য https://www.google.co.in/ তেমনি ভাবে Australia এর জন্য http://google.com.au এই ভাবে বিভিন্ন দেশের জন্য গুগল এর বিভিন্ন লোকাল সার্চ ইঞ্জিন রয়েছে। সাধারণত কোন একটি দেশ থেকে যখন একজন ভিজিটর গুগল এ সার্চ করে তখন যেন সে ঠিক যে জিনিসটি বা যে সার্ভিস খুজছে সেটাই যেন পায় এটার জন্যই গুগল এর এই ব্যবস্থার চালু। ব্যাপারটা আরো একটু ক্লিয়ার করা যাক। ধরুন আপনি বাংলাদেশে থাকেন। আপনি চাচ্ছেন আপনার আশে পাশে কোথায় ভাল হাসপাতাল আছে বা আপনি কোন মোটরকার রিপায়ারিং এর কোম্পানি খুজছেন। এখন আপনি গুগল এ সার্চ দিলেন এই কথা লিখে- motor repairing service, এখন যদি গুগল আপনাকে আমেরিকার কিছু সাইট এর ঠিকানা এনে দেয় তখন আপনার কি কোন লাভ হল? না, কারন আপনি তো আর আমেরিকা থাকেন না, আপনি থাকেন বাংলাদেশে তাই আপনার বাংলাদেশি কোন কোম্পানি দরকার যাদের কাছ থেকে আপনি মোটর রিলেটেড সেবা পাবেন। ঠিক এই জন্যই আপনাকে আপনার নিজ দেশের কোন কোম্পানির খোজ দেয়ার জন্য গুগল এর রয়েছে লোকাল সার্চ এর ব্যবস্থা। এই ব্যবস্থায় আপনি যখন গুগলে ঢোকেন তখন সেটা নিজে নিজেই আপনার দেশের লোকাল সার্চ ইঞ্জিনে চলে যায়। আর লোকাল সার্চ ইঞ্জিনে লোকাল সাইট গুলোকেই বেশি প্রাধান্য দেয়া হয়ে থাকে। যেমন- বাংলাদেশের জন্য যে সকল সাইটের ডোমেইন- www.something.com.bd এই রকম, মানে যাদের ডোমেইন .com.bd এই ভাবে থাকে তাদের সাইট গুলো google.com.bd এর সাইটে একটু বেশি প্রাধান্য পাবে। অর্থাৎ এখানে গুগল লোকাল সাইট গুলোকে লোকাল সার্চের জন্য বেশি গুরুত্ব দেয়, যাতে করে বিভিন্ন দেশের সার্ভিস বেস প্রতিষ্ঠানের ঠিকানা ওই দেশের লোকেরা সহজেই খুজে বের করতে পারে।

 

এখানে উল্লেখ্য, আপনি চাইলে গুগল এর এই লোকাল সার্চ ইঞ্জিনকে পরিবর্তন করে, গুগল.কম ও ব্রাউজ করতে পারবেন, এক্ষেত্রে গুগল এ গিয়ে ডান দিকে নিচে দেখুন google.com লিখা আছে, সেটাতে ক্লিক করলেই আপনি গুগল এর গ্লোবাল সার্চ ইঞ্জিনে প্রবেশ করতে পারবেন।

 

আশা করি লোকাল এসইও কি এটা সবাই খুব ভালভাবে বুঝতে পেরেছেন।

 

এখন একটা প্রশ্ন থেকে যায়- কারা করবে লোকাল এসইও?

এই প্রশ্নটা করা খুবই স্বাভাবিক। কারন এসইও তে আমরা এতদিন জেনেছি আমাদের সাইটকে গ্লোবাল ভাবে র‍্যাঙ্ক এ আনতে হবে, তাহলে কারা করবে এই লোকাল এসইও? এটা বোঝাতে গেলে আবারও চলুন আরেকটি উদাহরণে চলে যাই- ধরুন আপনার একটি মোটরগাড়ির দোকান আছে যেখানে মোটরগাড়ীর জন্য বিভিন্ন সার্ভিস দেয়া হয়। তো আপনি চাচ্ছেন আপনার এই কারখানার প্রসার হোক। তো এই জন্য আপনি একটি ওয়েবসাইট খুললেন। এখন এই সাইটের উন্নয়নের জন্য আপনি অনেক টাকা খরচ করে একজন এসইও কনসালটেন্ট রাখলেন। উনি কাজ করে আপনার সাইটকে অনেক ভাল পজিশনে নিয়ে গেল। প্রতিদিন আপনার সাইটে ১-২ হাজার ভিজিটর ঢুকছে, কিন্তু দেখা গেল, অনলাইন থেকে আপনার কোন সেল নেই! কেন এমন হল, এর কারন হল আপনার এসইও কনসালটেন্ট আপনার সাইটকে গ্লোবালি প্রমোট করেছে, তাই দেখা যাচ্ছে বাইরের বিভিন্ন দেশ থেকে প্রচুর ভিজিটর সাইট ঠিকই ঢুকছে কিন্তু বাংলাদেশ থেকে ঢুকছে কম সংখ্যক লোক। তাহলে সাইট করে আপনার কি কোন লাভ হল? না, কারন, আপনার এই ক্ষেত্রে দরকার বাংলাদেশ থেকে ভিজিটর এবং সেল। এই জন্যই মূলত দরকার হয় লোকাল এসইও। এর মাধ্যমে আপনি নির্দিষ্ট দেশ থেকে কাঙ্ক্ষিত ভিজিটর পেতে পারেন। ঠিক এই ধরণের সাইটের জন্য মূলত লোকাল এসইও করা হয়ে থাকে।

 

 

এখন আসা যাক গ্লোবাল এসইও তেঃ

গ্লোবাল এসইও শিখুন
শুরুতেই জেনে নেয়া যাক গ্লোবাল এসইও কি?

গ্লোবাল এসইও হচ্ছে বিশ্বব্যপী এসইও। মানে, আপনার ওয়েবসাইটকে সারা বিশ্বজুড়ে অপটিমাইজেশন করাই হচ্ছে গ্লোবাল এসইও। এই ক্ষেত্রে আপনকে ওয়ার্ল্ডওয়াইড এসইও করতে হবে। এই ক্ষেত্রে আপনাকে আসতে হবে google.com এর টপে। তবে একটা তথ্য জেনে নেয়া ভাল যে, গুগল.কম ব্যবহৃত হয়, সারা পৃথিবীর স্ট্যান্ডার্ড সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে এবং এটা আমেরিকার লোকাল সার্চ ইঞ্জিন হিসেবে ব্যবহৃত হয়। অর্থাৎ, বাংলাদেশের লোকাল এসইও এর জন্য যেমন google.com.bd আছে, তেমনি আমেরিকার জন্য এই রকম কোন সাইট নাই। গ্লোবালি গুগল এর স্ট্যান্ডার্ড সাইট google.com ই হচ্ছে তাদের লোকাল সাইট। আর অনেক ক্ষেত্রেই প্রয়োজন হয় গ্লোবাল এসইও করার।

 

কাদের জন্য গ্লোবাল এসইও?

এখনও পর্যন্ত গ্লোবাল এসইও এর চাহিদাই বেশি। সকল প্রকার ব্লগ, ফোরাম এই রকম যে সকল সাইট রয়েছে তাদের সকলেরই গ্লোবাল এসইও তে জোড় দিতে হবে, কারন তারা কোন প্রোডাক্ট সেল করে না, বরং তাদের প্রয়োজন ভিজিটর আর তাই, এই ভিজিটর যাতে ওয়ার্ল্ডওয়াইড হয় এটাই সবাই চায়। যেমন ধরুন আপনার একটি ব্লগ আছে যেখানে আপনি নিয়মিত বিভিন্ন গেমস নিয়ে লিখালিখি করেন। এক্ষেত্রে আপনার কিন্তু শুধু বাংলাদেশ থেকে ভিজিটর দরকার এমন নয়, সাইট চালানোর জন্য যে কোন দেশের থেকেই হোক না কেন ভিজিটর পেলেই হল। এই সকল ক্ষেত্রে গ্লোবাল এসইও করার প্রয়োজন হয়।

 

তাহলে লোকাল এসইও করলে কি আর গ্লোবাল এসইও করব না?

আসলে উপরের লিখাটা পড়লে আপনার মনে এই প্রশ্নটা জাগতেই পারে। আসলে লোকাল হোক বা গ্লোবাল আমাদের সবারই এসইও এর প্রাথমিক কাজগুলো সকল সাইটের জন্যই করে ফেলতে হবে। তবে লোকাল এসইও এর মূল টার্গেট হচ্ছে- লোকাল সেক্টর থেকে টার্গেটকৃত ভিজিটর আনা। যেমন- ফেসবুক, জি-প্লাস, টুইটার ইত্যাদি সোশ্যাল মিডিয়া মার্কেটিং করে ভিজিটর আনতে হবে এবং এসইও এর প্যাটার্ন এর মূল উদ্যেশ্য থাকবে লোকাল ভিজিটর পাওয়া। অপর দিকে গ্লোবাল এসইও এর মূল টার্গেট হল- বিশ্বব্যপী ভিজিটর। এটি আপনি যে কোন উপায়েই করতে পারেন। তবে, লোকাল এসইও আর গ্লোবাল এসইও প্রায় কাছাকাছি জিনিস। লোকাল এসইও করবেন বলে যে এটা গ্লোবাল এসইও তে কোন প্রভাব ফেলবে না বা গ্লোবাল এসইও করবেন বলে যে এটা লোকাল এসইও তে কোন প্রভাব ফেলবে না এমন কথা চিন্তাও করবেন না। কারন, গুগল এর লোকাল এবং গ্লোবাল এসইও রেজাল্ট এর ক্ষেত্রে অনেক মিল দেখা যায়। তবে বিশেষ কিছু ক্ষেত্রে অনেক অমিলও দেখা যায়। এই বিষয় গুলো নিয়ে পরের পোস্টে ইনশাআল্লাহ্‌ আরও অনেক বিস্তারিত আলচনা করব। আশা করি এই বিষয় গুলো নিয়ে কিছু ভিডিও টিউটোরিয়ালও তৈরি করব। পরবর্তী সময়ে ভিডিও গুলো আপনাদের দেয়া হবে।

 

আশা করি লোকাল এসইও কি এবং কেন করা হয় সবাই বুঝে গেছেন। আগামী পর্বে আলচনা করব লোকাল এসইও কিভাবে করা হয় এবং গ্লোবাল ও লোকাল এসইও করার ক্ষেত্রে এদের মধ্যে পার্থক্য কোথায় সেটা নিয়ে। আগামী পর্বের আমন্ত্রণ জানিয়ে এখানেই শেষ করছি।

“এসইও ভালভাবে শেখার জন্য আমাদের বাংলা ভিডিও টিউটোরিয়াল সংগ্রহ করতে পারেন। ক্লিক করুন এখানে।

এসইও সংক্রান্ত আমাদের ফেসবুকে গ্রুপে আজই যোগ দিন। আপডেটেড থাকুন।

The following two tabs change content below.

আব্দুল কাদের (এডমিন)

নিজের সম্পর্কে বলার তেমন কিছুই নেই, খুব সাধারন একটি ছেলে। লিখাপড়া করছি কম্পিউটার সাইন্স এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্টে। ছোটবেলা থেকেই টেকনোলোজির প্রতি ভীষণ আগ্রহ ছিল। তাই শেষপর্যন্ত টেককেই বেছে নিয়েছি পথ চলার সঙ্গী হিসেবে। কাজ করি ওয়েব ডেভেলপিং এবং ডিজিটাল মার্কেটিং নিয়ে। ভালবাসি আইটি সংক্রান্ত নতুন কিছু শিখতে। আমার শেখা তখনই স্বার্থক যখন সেটা আমি আরেকজনের মাঝে ছড়িয়ে দিতে পারব। আর এই জন্যই প্রতিষ্ঠা করেছি আইটি বাড়ি। ইনশাআল্লাহ আমাদের স্বপ্নের লাল সবুজের ডিজিটাল বাংলাদেশ হবেই হবে।

4 comments

  1. Email Marketing Tutorials

    Thank You so Much bro. Very nice post. Waiting to get the next tutorial of Practial Local SEO.

  2. This is very nice article. Thank you for sharing this post.

  3. ভাই অনেক অনেক ভাল লাগল আর্টিকেলটি পড়ে। মাথার সব জট খুলে গেল লোকাল এসইও আর গ্লোবাল এসইও এর ব্যাপারটা। পরবর্তী আর্টিকেল এর অপেক্ষায় থাকলাম।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

[index]
[index]